ওরা কী পেল ? – সঞ্জয় মণ্ডল

কবিতা সাহিত্য
Spread the love

তােমার কবিতার ওই হাড়হিম করা শব্দগুলিতে

যেন কেঁপে ওঠে বুকের মাঝে থাকা হৃদযন্ত্রটি

অনাবিল একরাশ অপূর্ণতার কালাে মেঘ

যেন ঘনিয়ে আসে আমাদের চারদিক জুড়ে।

রাস্তার ওই ফুটপাতে থাকা শিশুটির

বেদনার পল পল ফুটিয়ে তােলাে স্পষ্টতায়

শ্রোতাদের অশ্রুধারা যেন বাঁধ মানে না

এক নিবিড় নিস্তব্ধতায় ছেয়ে যায় চারদিক।

সত্যিই কি অপূর্ব সৃষ্টি তােমার এই লেখনীতে

যেন আগুনের পরশ দিয়ে যায় পাতার পর পাতা জুড়ে

তুলে ধরে সমাজের নানা বেদনা

আর কষ্টের আস্ফালনগুলিকে।

হাতেতালি ওঠে সারাঘর জুড়ে

ফুল আর পাপড়ির বরষণে

মােটা হয়ে যায় পায়ের নিচে থাকা কার্পেটটিও

নিমেষেই ঘিরে ধরে কলম আর ক্যামেরার লাইট।

একে একে পুরস্কারের ডালিতে সেজে ওঠে

তােমার ঘর আর বৈঠকখানায় সাজানাে টেবিল

দেওয়াল জুড়ে ভরে যায় মানপত্র আর সম্ভাষণে

একপলকেই বদলে যায় জীবন জীবিকার মান।

তবে! ওরা কি পায় ?

যাদের নিয়ে তােমার এই রক্তঝরা বর্ণমালার সৃষ্টি

তােমার ওই গাড়ির কাচ ভেদ করে যাদের হাত যায় না

যাদের দেখে থামে না তােমার পােশকি চক্রযানটি।

ওরা! ওরা সেই আঁধারেই থেকে যায়।

যাদের নিয়ে সৃষ্টি হয় সংঘ, সমাজ, রচনা

কথামালা আর শব্দমালার ডালি তৈরি হয় যাদের নিয়ে

যাদের নিয়ে পুরস্কৃত হয় তথ্যচিত্রটি নাট্যটি

ওরা!

হা, ওরা! ওরা! ওরা সেই আঁধারেই থেকে যায়

ওরা কলম চায় না,

চায় দুমুঠো ভাত আর একটু সহানুভূতি

একটা ছেড়া জামা আর অনুভূতি ভরা একটা হৃদয়।

যেখানে পুরস্কারের থেকে খিদের দাম বেশি।

ফুলের থেকে সম্মানের দাম বেশি।

অক্ষরের থেকে খিদে পাবার অনুভূতিটা বেশি

আর, যেখানে অন্ধকারের থেকে আলাের দাম বেশি।

হ্যা, ওরা শব্দমালা চায় না, চায় পেটটা ভরাতে

লজ্জার অনাবরণে ওরা চায় আবরণ

ওরা বেঁচে থাকতে চায়

গাড়ির কাচটা নামিয়ে কথা বলতে চায়

ওরা!

ওরা! একটু সহানুভূতি চায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *